কেঁদে ফেললেন সালাহ

চ্যাম্পিয়নস লিগের ফাইনালে ম্যাচের ২৭ মিনিটে আঘাত পান মোহাম্মদ সালাহ। মিসরীয় তারকাকে হাত টেনে ধরে ট্যাকল করেন রিয়াল মাদ্রিদ অধিনায়ক সাজিও রামোস। এরপর কিছুক্ষণ পরে কাঁদতে কাঁদতে মাঠ ছাড়েন সালাহ। তার কান্না দেখেই কিছুটা আঁচ করে গিয়েছিল ইনজুরিটা ছোট না। লিভারপুল কোচ জার্গেন ক্লপ তার অবস্থা দেখে জানান, মারাত্মক চোট পেয়েছেন সালাহ।

জার্মান কোচ বলেন, ‘তার ইনজুরিটা মারাত্মক। সে এক্স রে’র জন্য হাসপাতালে আছে। তার কলারবোন অথবা কাঁধে ইনজুরি হয়েছে বলে মনে হচ্ছে। তার অবস্থা দেখে ভালো মনে হচ্ছে না। এই তো।’ সালাহ চলতি মৌসুমে লিভারপুলের হয়ে ৪৪ গোল করেছেন। ইংলিশ দলটিতে দারুণ পারফর্ম করে চ্যাম্পিয়নস লিগের ফাইনালে তুলেছেন সালাহ।

লিভারপুল কোচ বলেন, ‘ওটা ম্যাচের গুরুত্বপূর্ণ মুহূর্ত ছিল। আমি জানি আপনারা বলবেন, হারের পরে এমন কথা অনেকেই বলে।বাজেভাবে হেরেছি এটাই বলবে সবাই। কিন্তু ম্যাচটি যেন কুস্তির মতো ছিল।’ মিসর ১৯৯০ সালের পর আবার বিশ্বকাপে খেলার সুযোগ পেয়েছে। তাদের মূল ভরসা সালাহ। দেশটির ফুটবলের রাজা তিনি। তার ইনজুরিতে বড় ধাক্কা খেল দেশটি।

ক্লপ বলেন, ‘আমরা এই ম্যাচে সবকিছু চেয়েছিলাম। কিন্তু কিছুই পেলাম না। আমরা ম্যাচে গুরুত্বপূর্ণ এক খেলোয়াড় খোয়ালাম। সম্ভবত মিসর বিশ্বকাপে তাদের সেরা তারকাকে হারালো।’ তবে মিসর ফুটবল ফেডারেশনের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, সালাহর কাঁধের ইনজুরি তাকে বিশ্বকাপের দল থেকে ছিটকে দেবে না। তবে তার ইনজুরিটা বড় বলে উল্লেখ করেছে সংবাদ মাধ্যম ইনডিপেনডেন্ট।

তাদের মতে, এক্স রে রিপোর্ট পাওয়ার পর সালাহ বিশ্বকাপে খেলতে পারবেন কিনা তা জানা যাবে। তবে তার কাঁধের সকেট যদি পুরোপুরো আলাদা হয়ে যায় তবে তা সেরে উঠতে ১২-১৬ সপ্তাহ সময় লাগতে পারে। যদি সালাহ রাশিয়া বিশ্বকাপে খেলতে না পারেন তাহলে মিসরের স্বপ্ন তে শেষ হবেই। প্রিমিয়ার লিগের সর্বোচ্চ গোলদাতাকে না পেয়ে সামান্য হলেও রং খসে পড়বে বিশ্বকাপের আসরের।




  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত


খেলা ক্যাটাগরির আরও খবর পড়ুন