কেন হাঁটবেন প্রতিদিন ?

যেকোনো বয়সের মানুষের শরীর সুস্থ রাখতে ব্যায়ামের বিকল্প নেই। আর হাঁটা এমন একটি ব্যায়াম, যা সব বয়সের জন্যই মানানসই। সহজে করাও যায়। একাধিক গবেষণায় প্রমাণিত, প্রতিদিন কম করে ১৫ মিনিট হাঁটার অভ্যাস করলে শরীর সুস্থ থাকে। এখন প্রশ্ন হলো, প্রতিদিন হাঁটলে শরীরের কী কী উপকার হয়?

জীবনধারা বিষয়ক ওয়েবসাইট রিডার্স ডাইজেস্টে প্রকাশিত প্রতিবেদনটি দেখে নিজেই জেনে নিন। ১. ক্যান্সারের প্রতিরোধক গবেষণায় দেখা গেছে নিয়মিত ৩০ মিনিট হাঁটলে শরীরের ভেতরে এমন কিছু পরিবর্তন হতে শুরু করে যার ফলে ক্যান্সার সেল জন্ম নেওয়ার সম্ভাবনা কমে যায়। ২. রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে থাকে নিয়মিত হাঁটার অভ্যাস করলে রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণের বাইরে যাওয়ার আশঙ্কা কমে। তাই যাদের পরিবারে এই রক্তচাপজনিত সমস্যা আছে, তাদের নিয়মিত হাঁটা প্রয়োজন। ৩. ডায়াবেটিসের মতো রোগ দূরে থাকে দুপুরে এবং রাতে খাওয়ার পর হাঁটার অভ্যাস করলে শরীরে শর্করার মাত্রা নিয়ন্ত্রণে থাকে। ফলে টাইপ-২ ডায়াবেটিসে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা একেবারে থাকে না বললেই চলে। ৪. মন ভালো থাকে

একাধিক গবেষণায় ইতিমধ্যেই একথা প্রমাণিত হয়েছে কয়েক মিনিট হাঁটলেই মন ভাল হয়ে যায়। আসলে হাঁটার সময় আমাদের মস্তিষ্কে এন্ডোরফিন নামে একটি হরমোনের ক্ষরণ বেড়ে যায়, যা নিমেষে মন খারাপকে আনন্দে বদলে দেয়। ৫. আয়ু বৃদ্ধি পায় বেশি হাঁটার প্রয়োজন নেই। প্রতিদিন কয়েক মিনিট করে নিয়মিত হাঁটুন। হাঁটার ফলে শরীরে সচলতা বৃদ্ধি পাওয়ার কারণে অনেক রোগে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনাও কমে। ফলে স্বাভাবিকভাবেই আয়ুর বৃদ্ধি ঘটে। ৬. হার্টের শক্তি বাড়ে চিকিৎসকদের মতে সারা দিনে ২০ মিনিট হাঁটলে নানাবিধ হার্টের রোগে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা প্রায় আট শতাংশ কমে যায়। আর এই সময়টা যদি ৪০ মিনিটে এনে দাঁড় করতে পারেন, তাহলে তো কোনো কথাই নেই!

৭. ওজন কমে প্রতিদিন অন্তত ২০ মিনিট হাঁটার অভ্যাস করলে শরীরের অতিরিক্ত চর্বি কিংবা ভিসারেল ফ্যাট কমতে শুরু করে। ফলে সার্বিকভাবে ওজন হ্রাস পায়। ৮. ক্লান্তিভাব দূর হয় ইউনিভার্সিটি অব জর্জিয়ার তত্ত্বাবধানে হওয়া এক সমীক্ষায় দেখা গেছে সারা দিনে যেকোনো সময় ২০ মিনিট হাঁটলে সারা শরীরে রক্ত প্রবাহ বেড়ে যায়। ফলে শক্তির ঘাটতি কমতে শুরু করে। ফলে অল্পতেই ক্লান্ত হয়ে যাওয়ার মতো সমস্যা দূর হয়।






লাইফস্টাইল ক্যাটাগরির আরও খবর পড়ুন