সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে গুজব রটনাকারীদের কোনো ছাড় দেওয়া হবে না।

পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি) ড. মোহাম্মদ জাবেদ পাটোয়ারী বলেছেন, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে গুজব রটনাকারীদের কোনো ছাড় দেওয়া হবে না।
তিনি বলেন, শিক্ষার্থীদের আন্দোলন চলাকালে যারা গুজব ছড়িয়েছে তথ্য প্রমাণের ভিত্তিতে তাদের চিহ্নিত করে আইনের আওতায় আনা হবে।
তিনি আজ দুপুরে ১৫ আগস্ট জাতীয় শোক দিবস ও কোরবানির ঈদকে সামনে রেখে পুলিশ সদর দপ্তরে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এ কথা বলেন।
আইজিপি বলেন, গুজব ছড়ানোর ঘটনায় এ পর্যন্ত ২১টি মামলা হয়েছে এবং ২৯টি অনলাইন পোর্টালকে চিহ্নিত করা হয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে।
তিনি বলেন, গত ২৯ জুলাই বিমানবন্দর সড়কে দুই শিক্ষার্থী নিহতের পর পর তিনদিন শিক্ষার্থীরা সড়কে শৃঙ্খলা ফেরাতে আন্দোলন করছিল, যা সঠিক পথেই ছিল। এরপরে ওই আন্দোলনের ভেতরে অনুপ্রবেশকারী বা তৃতীয় পক্ষ ঢুকে বিশৃঙ্খলার সৃষ্টি করে।
তিনি বলেন, যারা ছাত্র নয়, যাদের বিভিন্ন রাজনৈতিক উদ্দেশ্য ছিল তারাই হচ্ছে তৃতীয় পক্ষ।
জাবেদ পাটোয়ারী বলেন, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে গুজব বন্ধে সাইবার অপরাধ মনিটরিং এর জন্য আমরা কেন্দ্রীয়ভাবে সেল মনিটরিং জোরদার করছি। সেই সঙ্গে ফেইসবুকে ফেইক আইডিগুলো চিহ্নিত করা হচ্ছে। বেশ কিছু আইডি ইতোমধ্যে ব্লক করা হয়েছে।
বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের খুনিদের দেশে ফিরিয়ে আনার প্রক্রিয়ার বিষয়ে জাবেদ পাটোয়ারী বলেন, পলাতকদের মধ্যে দুজনের অবস্থানের তথ্য আমাদের কাছে আছে। তাদের একজন যুক্তরাষ্ট্র এবং আরেকজন কানাডায় আছেন। আমরা তাদের ফিরিয়ে আনতে ইন্টারপোলের সঙ্গে যোগাযোগ করছি। পাশাপাশি প্রধানমন্ত্রী ও আইনমন্ত্রীসহ সরকারি পর্যায়ে এ বিষয়ে যোগাযোগ অব্যাহত আছে।
তিনি বলেন, ১৫ আগস্ট শোক দিবসকে কেন্দ্র করে কোনো ধরনের নাশকতার আশঙ্কা নেই। তবুও সর্বোচ্চ নিরাপত্তায় গোয়েন্দা নজরদারি রয়েছে। এজন্য নিরাপত্তায় কোনো কমতি নেই। এ মাসে সব অনুষ্ঠানকে কেন্দ্র করে সজাগ থাকবে পুলিশ।
এক প্রশ্নের জবাবে আইজিপি বলেন, ছাত্র আন্দোলনের সময় সাংবাদিকদের ওপর হামলাকারীদের ধরতে ইতোমধ্যে ঢাকা মেট্রোপলিটনের গোয়েন্দা পুলিশের এডিশনাল কমিশনারকে নিয়ে একটি কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটি প্রয়োজনীয় তথ্য উপাত্ত সংগ্রহ করছে। তাদের সুপারিশের ভিত্তিতে ব্যবস্থা নেয়া হবে।
পুলিশ প্রধান বলেন, অপরাধ নিয়ন্ত্রণে প্রতিটি জেলা ও বিভাগীয় শহরে সেল গঠন করা হয়েছে। ইতোমধ্যে এর কার্যক্রম শুরু হয়েছে। এটি পুলিশ সদর দপ্তর মনিটরিং করবে।
মোহাম্মদ জাবেদ পাটোয়ারী বলেন, রাজধানীসসহ দেশের সব সড়ক-মহাসড়কে ফিটনেসবিহীন গাড়ি যাতে চলতে না পারে সে জন্য ডিএমপি ও হাইওয়ে পুলিশকে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।
তিনি বলেন, লাইসেন্সবিহীন চালকদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে। সড়কে লাইসেন্স ছাড়া কেউ গাড়ি চালাতে পারবে না। এব্যাপারে পুলিশ কঠোরভাবে মনিটরিং করবে।
তিনি আরও বলেন, ঈদের ছুটিতে ঢাকার নিরাপত্তা ব্যবস্থা আরও বাড়ানো হবে। ঈদ যাত্রা নির্বিঘ্ন করতে সড়ক মহাসড়কে পোশাকধারী ও সাদা পোশাকে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী কঠোর নজারদারিতে থাকবে। ঈদ উপলক্ষে যারা রাত্রিকালীন যাত্রা করবেন তাদেরকে পর্যাপ্ত নিরাপত্তা দেয়া হবে।
তিনি বলেন, গতবারের মত এবারও ঈদে অজ্ঞান পার্টি ও মলম পার্টির বিরুদ্ধে গোয়েন্দা নজরদারী রয়েছে। ইতোমধ্যে বেশকিছু গ্যাংও ধরা পড়েছে।
তিনি বলেন, কোরবানির পশুর হাসিল আদায়ে দৃশ্যমান ব্যবস্থা নিতে আমরা কঠোর হচ্ছি। যাতে অতিরিক্ত হাসিল আদায় করে কাউকে বিভ্রান্ত করতে না পারে। এছাড়া চামড়া পাচার রোধে গোয়েন্দা নজরদারী থাকবে।




  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত


রাজনীতি ক্যাটাগরির আরও খবর পড়ুন