পরমাণু অস্ত্র বানাবে রাশিয়া

যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে সামরিক শক্তির উন্নয়ন ঘটাবে রাশিয়া। ওয়াশিংটনের সঙ্গে শক্তির ভারসাম্য রক্ষায় তারাও বাড়াবে ক্ষেপণাস্ত্র ও পরমাণু অস্ত্রের ভাণ্ডার। মস্কোর সঙ্গে স্বাক্ষরিত পরমাণু চুক্তি থেকে সরে যেতে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের হুমকির পরিপ্রেক্ষিতে সোমবার এই পাল্টা হুশিয়ারি দিয়েছেন রুশ কর্মকর্তারা। বলেছেন, ট্রাম্প যদি পরমাণু চুক্তি থেকে বের হয়ে যান এবং নতুন করে ক্ষেপণাস্ত্র তৈরি শুরু করেন তাহলে যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে ভারসাম্য বজায় রেখে অস্ত্রভাণ্ডার গড়তে বাধ্য হবে রাশিয়া।

পরমাণু অস্ত্র কমাতে রাশিয়া ও যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে ‘ইন্টারমিডিয়েট-রেঞ্জ নিউক্লিয়ার ফোর্সেস’ (আইএনএফ) বা মাঝারি পাল্লার পরমাণু অস্ত্র নিরসন চুক্তি নামে একটি চুক্তি রয়েছে। শীতল যুদ্ধকালে ১৯৮৭ সালে সাবেক সোভিয়েত ইউনিয়ন প্রেসিডেন্ট মিখাইল গর্বাচেভ ও সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট রোনাল্ড রিগ্যান চুক্তিটি স্বাক্ষর করেন।

প্রায় তিন দশকের এ চুক্তি নিয়ে শনিবার প্রশ্ন তোলেন ট্রাম্প। মস্কো চুক্তিটি সঠিকভাবে বাস্তবায়ন করছে না বলে অভিযোগ করেন তিনি। সেইসঙ্গে ঘোষণা দেন, ঐতিহাসিক এ চুক্তি থেকে সরে যাবে ওয়াশিংটন। দু’দিন পর সোমবার যুক্তরাষ্ট্র তার পরমাণু অস্ত্রভাণ্ডার আরও বাড়াবে বলে নতুন করে হুমকি দেন ট্রাম্প। ট্রাম্পের এ হুমকির কয়েক ঘণ্টা পরই মস্কো সফরে যান মার্কিন জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা জন বোল্টন।

তার অবস্থানও পরমাণু অস্ত্রচুক্তি থেকে সরে যাওয়ার পক্ষে। সফরকালে ঊর্ধ্বতন রুশ কর্মকর্তাদের সঙ্গে বৈঠক করেন তিনি। ওই বৈঠকেই ট্রাম্পের পদক্ষেপের ব্যাপারে হুশিয়ারি দেন ক্রেমলিন কর্মকর্তারা। বোল্টনকে তারা জানিয়ে দেন, পারমাণু শক্তির ভারসাম্য রক্ষায় পদক্ষেপ নেবে মস্কো। প্রেসিডেন্ট পুতিনের মুখপাত্র দিমিত্রি পেসকভ বলেছেন, ‘চুক্তির বাস্তবায়ন নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের উদ্বেগও আমলে নেবে ক্রেমলিন।’

পরমাণু চুক্তি থেকে যুক্তরাষ্ট্রের প্রত্যাহার চীনের সঙ্গে উত্তেজনা আরও বাড়াতে পারে : আইএনএফ চুক্তি ওয়াশিংটনের প্রত্যাহার চীনের সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের উত্তেজনার পারদ আরও বাড়াতে পারে বলে সতর্ক করেছেন বিশেষজ্ঞরা। বলছেন, ট্রাম্প চুক্তি থেকে বের হয়ে গেলে পেন্টাগন হয়তো ক্ষেপণাস্ত্র নির্মাণে বেইজিংয়ের অগ্রগতি রোখার একটা সুযোগ পাবে। কিন্তু এর ফলে এশিয়া ও প্রশান্ত মহাসাগর অঞ্চলজুড়ে অস্ত্র নির্মাণ প্রতিযোগিতা শুরু হয়ে যাবে। এতে এখনকার উত্তেজনাকর পরিস্থিতি আরও নিয়ন্ত্রণহীন হয়ে পড়তে পারে। পেন্টাগনের সাবেক কর্মকর্তা ড্যান ব্ল–মেনথাল বর্তমানে আমেরিকান এন্টারপ্রাইজ ইন্সটিটিউটের পরিচালক এই বিশেষজ্ঞ বলছেন, ‘ট্রাম্প প্রশাসনের এই পদক্ষেপ ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষা নির্মাণে আরও বেশি ব্যয় করতে বাধ্য করবে।’




  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত


আন্তর্জাতিক ক্যাটাগরির আরও খবর পড়ুন