তারেকের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে ইসিতে আ.লীগের চিঠি

বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে দলীয় মনোনয়নপ্রত্যাশীদের সাক্ষাৎকার নিয়ে নির্বাচনের আচরণবিধি লঙ্ঘন করেছেন বলে অভিযোগ করেছে আওয়ামী লীগ। এ কারণে তারেক রহমানের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে নির্বাচন কমিশনে (ইসি) চিঠি দিয়েছে দলটি।

রোববার সন্ধ্যায় রাজধানীর আগারগাঁওয়ে নির্বাচন ভবনে আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য অবসরপ্রাপ্ত কর্নেল ফারুক খানের নেতৃত্বে ১১ সদস্যের প্রতিনিধিদল ইসি সচিব হেলালুদ্দীন আহমদের সঙ্গে সাক্ষাৎ করে এ সংক্রান্ত একটি চিঠি দেন।

পরে ফারুক খান সাংবাদিকদের বলেন, ‘একজন দণ্ডপ্রাপ্ত আসামি স্কাইপিতে মনোনয়নপ্রত্যাশীদের সাক্ষাৎকার নিচ্ছেন বলে জানতে পেরেছি। কিন্তু আদালত বলেছেন, একজন পলাতক আসামি হিসেবে তারেকের বক্তব্য কোথাও প্রচার করা যাবে না। সে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারপাসনের পদেও থাকতে পারবে না। তার স্কাইপিতে মনোনয়নপ্রত্যাশীদের সাক্ষাৎকার গ্রহণ এবং বক্তব্য প্রদান নির্বাচন আইনের লঙ্ঘন। আশা করি, নির্বাচন কমিশন এ বিষয়ে দ্রুত পদক্ষেপ নেবেন।’

তিনি বলেন, ‘ঐক্যফ্রন্টের নেতাকর্মীদের আমরা দেখেছি, সুপ্রিম কোর্টে সারা দিন নির্বাচনী প্রচার চালিয়েছে। এটা আচরণবিধির লঙ্ঘন। এই লঙ্ঘন নির্বাচন প্রক্রিয়াকে প্রশ্নবিদ্ধ করার প্রয়াস। এটি চলতে থাকলে নির্বাচন আরো প্রশ্নবিদ্ধ হবে। এ বিষয়ে দ্রুত শক্ত পদক্ষেপ নিতে হবে।’

নির্বাচন কমিশন আপনাদের কী আশ্বাস দিয়েছে, সাংবাদিকদের এ প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আমাদের দাবির পরিপ্রেক্ষিতে নির্বাচন কমিশনও উপযুক্ত পদক্ষেপ নেবে বলে জানিয়েছে।

এ সময় আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মুহিবুল ইসলাম চৌধুরী নওফেল বলেন, ‘বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারপারসন তারেক রহমান টেলিকনফারেন্সের মাধ্যমে মনোনয়নপ্রত্যাশীদের সাক্ষাৎকার নিচ্ছেন। এ খবর গণমাধ্যমে এসেছে। একজন পলাতক আসামির বক্তব্য গণমাধ্যমে আসতে পারে না। গণমাধ্যমও সেই বক্তব্য প্রচার করতে পারবে না বলে আদালতের নির্দেশনা আছে। তারেক রহমান এই টেলিকনফারেন্স করে কোর্টের আদেশ অমান্য করেছেন। তিনি আইন মানছেন না।’

আওয়ামী লীগের প্রতিনিধিদলে ছিলেন অ্যাডভোকেট ফজিলাতুন্নেছা বাপ্পি, রিয়াজুল কবীল কাউসার প্রমুখ।




  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত


রাজনীতি ক্যাটাগরির আরও খবর পড়ুন