জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পর বিশ্ব এজতেমা : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেছেন, টঙ্গীর তাবলীগ জামাতের বিশ্ব এজতেমা অবশ্যই অনুষ্ঠিত হবে। তবে তা ৩০ ডিসেম্বর জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগে নয়। এজতেমা আবার হবে এটা আমরা বিশ্বাস করি। তাবলীগ জামাতের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনায় বিবদমান দুই পক্ষের মধ্যে যে মতভেদ সৃষ্টি হয়েছে তা আলোচনায় বসে ভুল বুঝাবুঝি দূর করে নতুন তারিখ ঘোষণা করা হবে তিনি আশা প্রকাশ করেছেন।

তিনি শনিবার বিকালে এজতেমা ময়দানে ১ ডিসেম্বর ঘটে যাওয়া তাবলীগ জামাতের দু’পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনার পরিস্থিতি সরেজমিনে দেখতে টঙ্গীর এজতেমা ময়দান পরিদর্শনকালে তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি আরো বলেন, এজতেমা ময়দানে সংঘর্ষে হতাহতের ঘটনায় দায়ের করা মামলাগুলো তদন্ত শেষে দোষীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে। টঙ্গীর এজতেমা মাঠে মুসুল্লিরা আসেন ইবাদতের জন্য, ধর্মীয় কাজে, মাঠের উন্নয়ন কাজের জন্য, তাবলীগের মেহনতের জন্য। এরাঁ কিভাবে মারামারি করে? এর জন্য পূর্ব থেকে প্রশাসনের কেউ প্রস্তুত ছিল না। প্রশাসনের লোকজনের সামনে জোর করে একটি পক্ষ এজতেমা ময়দানে প্রবেশ করে। আমরা ভেবেছিলাম তারা এজতেমা ময়দানে প্রবেশ করে প্রস্তুতি সভা করবে।

কিন্তু তারা তা না করে ভাঙচুর করে এবং মাঠের ভিতরে যারা অবস্থান করছিলেন তাদের উপর হামলা করে আহত এবং নিহতের ঘটনা ঘটায়। এটা সত্যিই একটি দু:খ জনক ঘটনা। তাবলীগ জামাতের স্মরণকালে এর নজির নেই। জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পূর্ব পর্যন্ত আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা সারাদেশে নির্বাচনী কার্যক্রমে ব্যস্ত থাকবে। এসময় টঙ্গীতে লাখ লাখ মুসল্লীর জমায়েত নিয়ন্ত্রণে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সমাবেশে ঘাটতি থাকবে। এই কারণে নির্বাচনের পরে কোন এক সময় দু’পক্ষকে নিয়ে বিশ্ব এজতেমার নয়া তারিখ ঘোষণা করা হবে। মন্ত্রী এজতেমার মাঠে সংঘর্ষে ভাঙচুরের ঘটনার বিভিন্ন আলামত স্বচক্ষে পরিদর্শন করেন এবং তাবলীগের মুরুব্বিদের সঙ্গে কথা বলেন। এ সময় মন্ত্রীর সঙ্গে ছিলেন, স্থানীয় সংসদ সদস্য জাহিদ আহসান রাসেল, গাজীপুর সিটি মেয়র মো. জাহাঙ্গীর আলম, পুলিশের মহাপরিদর্শক জাবেদ পাটোয়ারি, র্যাবের মহাপরিচালক বেনজির আহমেদ, গাজীপুর মহানগর পুলিশ কমিশনার এম ওয়াই বেলালুর রহমান, মতিউর রহমান মতিসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আরো বলেন, যেহেতু এখানে একটি হত্যাকান্ডের ঘটনা ঘটেছে, তিনজন তাবলীগ সাথী মৃত্যু শয্যায় রয়েছেন এবং অনেকে আহত হয়েছেন।

এ ঘটনায় থানা ও আদালতে তিনটি মামলা হয়েছে। মামলাগুলোর তদন্তে যারা দোষী, যারা এ ঘটনা ঘটিয়েছে, যারা এ হত্যাকান্ড ও সংঘর্ষের সাথে জড়িত ব্যক্তি তাদের বিরুদ্ধে আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেয়া হবে।

উল্লেখ করা যেতে পারে, ১ ডিসেম্বর টঙ্গীর এজতেমা ময়দানে সা’দ পন্থী ও জোবায়ের পন্থীদের মধ্যে এক সংঘর্ষের ঘটনায় একজন নিহত ও তিন শ’র উপরে আহত হন।




  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত


বাংলাদেশ ক্যাটাগরির আরও খবর পড়ুন