অফিসে নিরাপদ পানি পান করছেন তো?

পানির অপর নামই হলো জীবন। বিশুদ্ধ এবং পরিষ্কার পানি পানের ওপর আমাদের সুস্থতা নির্ভর করে। বাসা কিংবা অফিসে আমরা সবসময় ফিল্টার পানির ওপর নির্ভর করি। বাসায় থাকলে পানি পরিষ্কার আছে কি না তা বেশ গুরুত্বের সঙ্গে দেখি। কিন্তু অফিসে কাজের চাপে আমরা সেদিকে নজর দেওয়ার তেমন একটা সময় পাই না। আবার প্রশাসনের ওপরও রয়েছে আমাদের অগাধ আস্থা। ফল যা হওয়ার তাই হয়। অফিসের এই খাওয়ার পানি দূষিত হওয়ার সম্ভাবনা বেশি। আর দূষিত পানি পানে আমরা অসুস্থ হয়ে পড়তে পারি। টাইমস অব ইন্ডিয়ার এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, শীতে প্রয়োজন নেই, তবে গরমে বাইরে থেকে আসার পর আমরা ঠাণ্ডা পানির তৃষ্ণা অনুভব করি। ফলে স্বাভাবিকভাবেই আমরা ফিল্টারের পানি ঠাণ্ডা করে পানি করি। সমস্যাটা আসলে এখানেই। বিশেষজ্ঞরা বলেছেন, অফিসে পানি ঠাণ্ডার যে যন্ত্রটি রয়েছে সেটি নিয়মিত পরিষ্কার করা হয় না। আবার সেটি ঠিক আছে কি না তাও পরীক্ষা করা হয় না। ফলে সহজেই সেখানে নানা রোগজীবাণু বাসা বাঁধে। এ সময় পানি পান কখনোই নিরাপদ নয়। ন্যাশনাল সায়েন্স ফাউন্ডেশন ইন্টারন্যাশনালের মতে, এক বর্গ ইঞ্চির একটি ওয়াটার কুলারে ২ দশমিক ৭ মিলিয়ন জীবাণু খুঁজে পাওয়া যায়। যেগুলো আমাদের সবাইকে অসুস্থ করার জন্য যথেষ্ট। তাহলে কী ট্যাপের পানি ওপর ভরসা করবেন? এ প্রসঙ্গে বিশেষজ্ঞরা বলেন, অনেক এলাকায় বিশেষ করে ছোট অফিসগুলোতে খাওয়ার পানি হিসেবে ট্যাপের পানি ব্যবহৃত হয়। তবে এই পানি পানেও কিন্তু আপনার সচেতনতা প্রয়োজন। কারণ এই পানিও আপনার জন্য নিরাপদ নয়। বিশেষজ্ঞরা বলেন, ট্যাপের পানিতে কণা আকারের কঠিন বস্তুর ধাতব, খনিজ এবং লবণ রয়েছে, যা পানিকে দূষিত করতে পারে। যদিও এর কিছু উপাদান স্বাস্থ্যের জন্য উপকারী, কিন্তু প্রাকৃতিক ও মনুষ্যসৃষ্ট উত্স থেকে কিছু বিপজ্জনক কণা এই পানিতে মিশতে পারে। ফলে একটা ঝুঁকি থেকেই যায়। তাহলে বোতলের পানির ওপর নির্ভরশীল হবেন? এ ক্ষেত্রে বিশেষজ্ঞরা বলেন, যদি আপনি মনে করেন বোতলের পানি শুধু পরিষ্কার নয়, বিশুদ্ধকরও বটে। তাহলে বিষয়টি নিয়ে আবারও ভাবার সময় এসেছে। বোতলজাত পানি 'খোলা সিস্টেম' হিসেবেও বিবেচিত হয়, যেটিতে বায়ুবাহিত জীবাণূ প্রবেশ করে পানি দূষিত করতে পারে। তখন এই পানি পানে আপনি অসুস্থ হয়ে পড়তে পারেন। তাহলে কী করবেন? বিশেষজ্ঞরা বলেন, কর্মক্ষেত্রে আপনার খাবার পানি দূষিত হতেই পারে। কিন্তু তার মানে এই নয় যে, আপনি পানি পান না করে পানিশূন্যতায় ভুগবেন। যদি সম্ভব হয়, তাহলে বাসা থেকেই পানির বোতল নিয়ে আসুন। আর যদি তা সম্ভব না হয় তাহলে অফিসেই ঠাণ্ডা নয়, হালকা গরম পানি পান করুন। এটা আপনার শরীরে জীবাণু ছড়ানোর ঝুঁকি অনেকটাই কমিয়ে দেবে।






লাইফস্টাইল ক্যাটাগরির আরও খবর পড়ুন